মাইগ্রেন

কারণ এবং প্রতিরোধ:

মাইগ্রেন অন্যান্য মাথাব্যথা থেকে ভিন্ন হবার কারণে এর সম্পর্কে আমাদের সচেতন হওয়া একান্ত প্রয়োজন। এর সম্পর্কে আমাদের জানতে হবে এবং একই সাথে প্রতিরোধ করতে হবে।

মাইগ্রেনের ট্রিগার:

মাইগ্রেন বিভিন্ন কারণে হতে পারে। একই ট্রিগার সবার জন্য প্রযোজ্য নাও হতে পারে। নিচে মাইগ্রেনের কয়েকটি কমন ট্রিগার দেয়া হলো:                                 

  • রাত জাগা বা বেশী ঘুমানো
  • স্ট্রেস বা মানসিক চাপ
  • ক্লান্তি
  • অতিরিক্ত কাজের চাপ
  • পনির
  • অ্যালকোহল
  • আর্টিফিশিয়াল সুইটেনার
  • পানিশূন্যতা
  • ক্যাফেইন
  • ডিপ্রেশন
  • অতিরিক্ত শরীরচর্চা
  • মেয়েদের পিরিয়ড এবং যেকোনো হরমোনাল পরিবর্তন
  • আবহাওয়া
  • সময়মত না খাওয়া
  • চকলেট
  • সিট্রাসযুক্ত ফল
  • ফুড অ্যাডিটিভ (নাইট্রাইট, নাইট্রেট, এমএসজি)
  • লবনাক্ত খাবার
  • চোখের ওপর অতিরিক্ত চাপ, স্ক্রিনের সামনে দীর্ঘ সময় বসে থাকা, তীব্র আলো
  • অতিরিক্ত শব্দ, কোলাহল
  • কড়া গন্ধ

নিজের ট্রিগারগুলো চিনতে হবে প্রথমে, এরপর সেগুলোকে যতটুকু সম্ভব এড়িয়ে চলতে হবে

 

মাইগ্রেন প্রতিরোধে করণীয় :

মাইগ্রেন পুরোপুরি প্রতিরোধ না করা গেলেও একে নিম্নোক্ত উপায়ে নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব :

 

পানি পান করা: পানিশূন্যতার কারণে মাইগ্রেন পেইন হতে পারে এজন্যে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে ক্যাফেইন, অ্যালকোহল, চিনিযুক্ত যেকোনো ড্রিংক শরীর থেকে পানি টেনে নেয় এজন্যে যতটুকু সম্ভব এগুলো এড়িয়ে চলা উচিত

 

পর্যাপ্ত ঘুম ও বিশ্রাম: প্রতিদিন একই সময়ে ঘুমোতে যাওয়া উচিত ও ঘুম থেকে ওঠা উচিত। প্রতিদিন রাতে অন্তত সাত ঘণ্টা ঘুমোতে হবে।

 

শরীরচর্চা: প্রতিদিন কিছু সময় শরীরচর্চা করতে হবে। এতে শরীর সুস্থ থাকবে এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে

 

সময়মত খাদ্যগ্রহণ: রক্তের সুগার লেভেল না খাওয়ার কারণে ড্রপ করে, যা মাইগ্রেন পেইন হবার অন্যতম কারণ। রুটিন মেনে সময়মত খাদ্যগ্রহণ করতে হবে এবং প্রচুর পানি পান করতে হবে কোনো কারণে ডায়েট করতে চাইলে প্রথমে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে

 

তীব্র আলো,শব্দ ও গন্ধ থেকে দূরে থাকা: আলো, শব্দ এবং গন্ধ- এই তিনটি তীব্র হয়ে গেলে তা মাইগ্রেনের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে বলেই যতটুকু সম্ভব এগুলোকে এড়িয়ে চলতে হবে।

 

স্ট্রেস কমানো: স্ট্রেস মাইগ্রেনের অন্যতম কারণ। নিজেকে যতটা সম্ভব চিন্তামুক্ত রাখতে হবে কাজের চাপের মধ্যেও নিজের যত্ন নিতে হবে স্ট্রেস কমানোর জন্যে যা যা করা যেতে পারে:

1. ধ্যান করা

2. ইয়োগো করা

3. হাল্কা গান শোনা

4. বাইরে হাঁটতে যাওয়া

 

এগুলো মেনে চললে মাইগ্রেন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব।

 

Contributor: Ishrat Jahan Kashfia

Bangladesh University of Professionals  

আরও গল্প

একটা মুভি দেখা কি এতই ...

এই কি জীবনের সব?

কেন আমি কখনো বৃষ্টিতে ভিজতে ...

আরও গল্প

মধুর উপকারিতা

হেলথকেয়ার ব্লগ
3 weeks ago

স্বাস্থ্য রক্ষায় রসুন

হেলথকেয়ার ব্লগ
3 weeks ago

১০০ রোগের ঔষধ একটি নিম গাছ

হেলথকেয়ার ব্লগ
1 month ago