সুস্থ-সমর্থ হার্টের খাদ্যতালিকা !

আমাদের দেহের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হল আমাদের হৃদপিণ্ড বা হার্ট । হার্টের প্রধান কাজ হল দেহে অক্সিজেন ও কার্বন ডাই অক্সাইড সমৃদ্ধ রক্ত চলাচল নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে আমাদের শ্বাসপ্রশ্বাস চালিয়ে যাওয়া । হার্ট বন্ধ হয়ে গেলে আমাদের মৃত্যু অবধারিত। বর্তমান এ বাংলাদেশে হৃদরোগ মৃত্যুর অন্যতম কারন । পরিবেশ দূষণ , অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস , ধূমপান হৃদরোগের কারন হিসেবে মূলত দায়ী। সুস্থ সবল হার্টের জন্য নিয়মিত বায়াম, সঠিক খাদ্যগ্রহণ ও ধূমপানসহ অন্যান্য অস্বাস্থ্যকর অভ্যাস পরিহার করা উচিত । সুস্থ-সমর্থ হার্টের খাদ্যতালিকা অনুসরন করা প্রয়োজন। আমাদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় কিছু নির্দিষ্ট খাদ্যের উপস্থিতি ভবিষ্যতে হৃদরোগের ভয়াবহতা থেকে বাঁচাতে পারে।

সুস্থ হার্টের খাদ্যতালিকাঃ

 

১। টমেটো

হার্ট কে সচল রাখতে টমেটোর ভূমিকা অনন্য। টমেটো দেহে কোলেস্টেরোলের মাত্রা কমিয়ে রাখে এবং আমাদের রক্তকনিকার কোষসমূহ জমাট বাধা রোধ করে। এতে রয়েছে ভিটামিন এ, সি,কে এবং পটাসিয়াম যা আমাদের হার্টকে ভাল রাখে।

২।মিষ্টি আলু

মিষ্টি আলু স্বাস্থ্যের জন্য খুব ভাল। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আন্টি অক্সিডেন্ট, ভিটমিন সি এবং একদিনের জন্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন এ । মিষ্টি আলুর খোসা ও ফাইবার ও পটাসিয়াম এ পরিপূর্ণ ।

৩। অলিভ অয়েল

রান্নায় অলিভ অয়েল ব্যবহার করা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। এটি কোলেস্টেরোল , লবন, চিনি ও ফ্যাটমুক্ত। এটা আমাদের দেহের জন্য স্বাস্থ্যকর স্নেহ সম্পন্ন। অলিভ অয়েল বিভিন্ন হৃদরোগ প্রতিরোধ করে এবং পরিপাক ক্রিয়ায় সাহায্য করে।

৪। ওটমিল

ওটমিল এমন একটি উপাদান যা দিয়ে মুখরোচক বিভিন্ন স্বাদের খাদ্য তৈরী করতে পারি। এটি রক্তে ‘এলডিএল’ অর্থাৎ খারাপ কোলেস্টেরোলের মাত্রা কমায় এবং  ধমনী ও শীরায় রক্ত চলাচল অব্যাহত রাখে যা সবল হার্টের প্রথম শর্ত । এতে করে দেহে কার্ডিভাসকিওলার রোগের ঝুঁকি কমে যায়।

৫। পেঁপে

সুস্বাদু হওয়ার সাথে পেঁপেতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ই ও এ । পেঁপে রক্তে কোলেস্টেরোল এর অক্সিডেসন বা সৃষ্টি প্রতিরোধ করে হার্ট আটাক ও স্ট্রোক র ঝুঁকি কমায়।

৬। কমলা

শুধুমাত্র ভিটামিন সি সম্পন্ন নয়, কমলা দেহে উচ্চ রক্তচাপ ও কোলেস্টেরোলের মাত্রা কমিয়ে আমাদের হৃদরোগ থেকে রক্ষা করে। কমলাতে উপস্থিত পেক্টিন নামক ফাইবার রয়েছে যা একটি বড় স্পঞ্জ হিসেবে খাবারে উপস্থিত কোলেস্টেরোল শুষে নিয়ে রক্তে তা মিশতে বাধা দেয়। এতে আরো রয়েছে পটাসিয়াম যা আমাদের লবণ ও সোডিয়াম লেভেল সুষম রেখে উচ্চ রক্তচাপজনিত সমস্যা রোধ করে।

৭। টকদই

সম্প্রতি একটি স্টাডি তে প্রকাশ পেয়েছে যে বয়স্ক মহিলারা যারা নিয়মিত টকদই খেয়েছেন তাদের ধমনী প্রসারিত হবার সম্ভাবনা কম এবং এতে করে হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমে। এছারাও এটি মাড়ির অসুখ প্রতিরোধ করে যা কিনা পরবর্তীতে হৃদরোগ সৃষ্টি করতে পারে।

৮। ডাল

ডালের পুষ্টিগুণ অসামান্য । এটি প্রচুর প্রোটিন সমৃদ্ধ, রক্তে চিনির মাত্রা থিক রাখে, পরিপাক ক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ করে , দেহে শক্তি যোগায় এবং হৃদরোগের সম্ভাবনা কমায়। ডাল আমাদের প্রতিদিনের খাদ্দতালিকায় প্রধান যেহেতু এটি দ্রুত ও সহজে তৈরী করা যায় এবং কমদামী ।

৯। রসুন

প্রতিদিন খাবারে আগে ২/৩ কোয়া রসুন খালি চিবিয়ে খেলে তা হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ ও কোলেস্টেরোলের ঝুঁকি কমিয়ে দেহের প্রতিরক্ষা ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

১০। শাক

পুঁইশাক , পালংশাক, লাউশাক এধরনের খাবার শুধুমাত্র হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায় না , যাদের হার্ট অ্যাটাক হয় তাদের বাঁচার সম্ভাবনা শতকরা তিন ভাগের একভাগ বৃদ্ধি করে। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন কে ও এ । আমাদের সপ্তাহে অন্তত ২ বার শাক খাবারে রাখা উচিত।

১১। অ্যাভোকাডো

অ্যাভোকাডো একমাত্র ফল যাতে মনস্যাচুরেটেড ফ্যাট রয়েছে যা দেহে এল্ডিএল কোলেস্টেরোলের মাত্রা কমায় এবং এইচ ডি এল কোলেস্টেরোলের মাত্রা বাড়ায়। অ্যাভোকাডো হার্টকে সুস্থ রাখে।

১২। গাজর

আমরা জানি গাজর আমাদের চোখের জন্য ভাল। কিন্তু এছারাও গাজর হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায়, এতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন কে ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রয়েছে ।

১৩। ডার্ক চকলেট

প্রত্যেক সপ্তাহে পরিমিত ডার্ক চকলেট খেলে তা আমাদের রক্তচাপ ঠিক রাখে, রক্ত চলাচল বৃদ্ধি করে এবং রক্ত জমাট বাধা রোধ করে।

এসকল খাবার আমাদের ও আমাদের প্রিয়জনদের মারাত্মক হৃদরোগ থেকে বাঁচাতে পারে। নিয়মিত স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস ও সঠিক লাইফস্টাইল আমাদের নিরাপদ ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করে ।

Contributor: Jahin Tahsin Monami

Public Administration

University of Dhaka

 

আরও গল্প

একটা মুভি দেখা কি এতই ...

এই কি জীবনের সব?

কেন আমি কখনো বৃষ্টিতে ভিজতে ...

আরও গল্প

মধুর উপকারিতা

হেলথকেয়ার ব্লগ
3 months ago

স্বাস্থ্য রক্ষায় রসুন

হেলথকেয়ার ব্লগ
3 months ago

১০০ রোগের ঔষধ একটি নিম গাছ

হেলথকেয়ার ব্লগ
3 months ago